হেফাজত মহাসচিব নূর হোসাইন কাসেমী আর নেই

হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ ও জমিয়তে উলামায় ইসলামের মহাসচিব শায়খুল হাদিস নূর হোসাইন কাসেমী আর নেই। আজ রোববার দুপুরে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালের হাই-ডিপেন্ডেন্সি ইউনিটে (এইচডিইউ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন হেফাজতের কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক জাকারিয়া নোমান ফয়জী। তিনি বলেন, ‘শাইখুল হাদিস আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী হুজুর মারা গেছেন।’

এর আগে গত ১ ডিসেম্বর শ্বাসকষ্ট হওয়ায় আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমীকে ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ঠাণ্ডা ও শ্বাসকষ্ট থাকলেও তার করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। গত বৃহস্পতিবার দুপুরের দিকে তাকে এইচডিইউতে নেওয়া হয়।

নূর হোসাইন কাসেমী জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব, বেফাকের সহ-সভাপতি এবং আল-হাইয়া বোর্ডের কো-চেয়ারম্যান। হেফাজতে ইসলাম প্রতিষ্ঠার পর থেকে নূর হোসাইন কাসেমী সংগঠনটির ঢাকা মহানগর সভাপতির দায়িত্ব পালন করছিলেন। গত ১৫ নভেম্বর গঠিত হেফাজতের নতুন কমিটি কমিটিতে তাকে মহাসচিব নির্বাচিত করা হয়। আর কমিটির আমির নির্বাচিত হন আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী।

নূর হোসাইন কাসেমী মৃত্যুর আগ পর্যন্ত ঢাকার জামিয়া মাদানিয়া বারিধারা মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল ছিলেন। তিনি ১৯৪৫ সালের ১০ জানুয়ারি, রোজ শুক্রবার কুমিল্লার মনোহরগঞ্জ থানার চড্ডা নামক গ্রামে এক মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। গ্রামের স্কুলে প্রাথমিক শিক্ষা শুরু করার পর চতুর্থ শ্রেণি শেষ করে চড্ডার কাশিপুর মাদরাসায় ভর্তি হন। সেখানে মুতাওয়াসসিতাহ জামাত পর্যন্ত পড়েন। তারপর তিনি বড়ুরার মাদ্রাসায় হেদায়াতুন্নাহু জামাত শেষ করেন। এরপর ভারতের সাহারানপুর জেলার বেড়ীতাজপুর মাদরাসায় জালালাইন জামাত পড়েন।

কাসেমী এরপর দারুল উলুম দেওবন্দে তিন বছর শিক্ষালাভ করেন। দাওরায়ে হাদিস সমাপ্ত করার পর তিনি তাকমীলে আদব, তাকমীলে মাকুলাত, তাকমীলে উলুমে আলিয়া জামাতেও অধ্যয়ন করেন।

নূর হুসাইন কাসেমী ভারতের উত্তরপ্রদেশে মুজাফফরনগর শহরে অবস্থিত কাসেম নানুতুভি কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত মুরাদিয়া মাদরাসায় এক বছর অধ্যাপনা করেন। এরপর ১৯৭৩ সালের শেষ দিকে শরীয়তপুর জেলার নড়িয়া থানার নন্দনসার মুহিউস সুন্নাহ মাদরাসায় শায়খুল হাদীস ও প্রিন্সিপাল পদে যোগদান করেন। ১৯৭৮ সালে ঢাকার ফরিদাবাদ মাদরাসায় যোগদান করে চার বছর শিক্ষকতা করেন। এখানে তিনি দীর্ঘদিন দারুল ইকামাহ-এর দায়িত্ব পালন করেন।

১৯৮২ সালে কাজী মু’তাসিম বিল্লাহ কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত জামিয়া শারইয়্যাহ মালিবাগে তিরমিযী শরীফ পড়াতে থাকেন। এখানে ৬ বছর শিক্ষকতা করার পর ১৯৮৮ সাল থেকে অধ্যাবধি পর্যন্ত জামিয়া মাদানিয়া বারিধারা এবং ১৯৯৮ সাল থেকে অধ্যাবধি জামিয়া সুবহানিয়ার শায়খুল হাদীস ও অধ্যক্ষের দায়িত্ব পালন করছেন।

নূর হোসাইন কাসেমী ১৯৭৫ সালে জমিয়ত উলামায়ে ইসলামের সঙ্গে যুক্ত হন। ১৯৯০ সালে তিনি জমিয়তের কেন্দ্রীয় নেতৃত্বে চলে আসেন। তিনি ৭ নভেম্বর ২০১৫ সাল থেকে জমিয়ত উলামায়ে ইসলামের মহাসচিবের দায়িত্ব লাভ করেন। ১৯৯০ থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত তিনি খতমে নবুয়ত আন্দোলনের সাথে যুক্ত হন এবং সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন।

 

এমন আরো সংবাদ

Back to top button