ভোজ্যতেলের দাম লিটারে বেড়েছে ১০-১১ টাকা

Cooking oil bottles at factory warehouse

দীর্ঘ সময় বাদে বাজারে সবজি, পেঁয়াজ, মুরগি ও ডিমের দামে কিছুটা স্বস্তি ফিরতে শুরু করেছে। কিন্তু বাজারে নিঃশব্দে বেড়ে চলেছে ভোজ্যতেলের দাম। গত এক মাসের ব্যবধানেই বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম প্রতিলিটারে ১০ থেকে ১১ টাকা বেড়ে গেছে। এতে ভোজ্যতেল কিনতে গিয়ে হোঁচট খাচ্ছেন ভোক্তারা। রেহাই পাচ্ছে না নিম্নআয়ের মানুষও। কারণ খুচরা পাম তেলের দামও অনেক বেড়েছে।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, প্রথমে খোলা সয়াবিন ও পাম তেল এবং পরে বোতলজাত তেলের দাম বেড়েছে। বিগত এক মাসেই বোতলজাত তেলের দাম তিন দফায় বেড়েছে। বাজারে এখন এক লিটার সয়াবিন তেলের দাম পড়ছে ১০৫ থেকে ১১৫ টাকা। অন্যদিকে অল্প অল্প করে কয়েক দফায় বেড়েছে খুচরা ও পাম তেলের দাম। ভালো মানের খুচরা তেলের দাম এখন ১১০ টাকা কেজি ছুঁয়েছে এবং পাম তেল পাওয়া যাচ্ছে ৯৮ টাকা কেজি দরে।

রাজধানীর কারওয়ানবাজার কিচেন মার্কেটের ঢাকা জেনারেল স্টোরের ব্যবসায়ী মো. মুজাহীদ বলেন, মাসখানেক আগে ব্র্যান্ডভেদে ৫ লিটারের বোতল পাওয়া গেছে ৪৬০ থেকে ৫১৫ টাকার মধ্যে। এখন তা দাম বেড়ে পাওয়া যাচ্ছে ৫১০ থেকে ৫৭০ টাকা পর্যন্ত। দাম বেশি হওয়ায় রূপচাঁদা, তীরের মতো বেশি দামের তেল বিক্রি করাই বন্ধ করে দিয়েছি। এ দাম শুনলে ক্রেতারা রেগে যাচ্ছেন। বাধ্য হয়ে বসুন্ধরা, ফ্রেশ, পুষ্টির মতো তুলনামূলক কম দামের তেল বিক্রি করছি কেবল।

মুজাহীদ জানান, বসুন্ধরা ও পুষ্টি ব্র্যান্ডের পাঁচ লিটার বোতল এখন বিক্রি হচ্ছে ৫১০ থেকে ৫১৫ টাকা। সপ্তাহখানেক আগেও যা বিক্রি হয় ৪৮০ টাকায়। এক মাস আগে দাম ছিল ৪৬০ টাকা। অন্যদিকে ফ্রেশের পাঁচ লিটার এখন ৫২৫ থেকে ৫৩০ টাকা। দুই সপ্তাহ আগেও পাওয়া গেছে ৪৮০ টাকায়।

একই বাজারের বিউটি স্টোরের ব্যবসায়ী মো. জাকির হোসাইন বলেন, তীর ব্র্যান্ডের ৫ লিটার তেলের কার্টন (৪ বোতল) আমাদেরই কিনতে হচ্ছে ২ হাজার ১০০ টাকায়। তিন দিন আগেও যা কিনেছি ২ হাজার টাকায়। মাসখানেক আগে কিনতে পেরেছি ১ হাজার ৮০০ টাকায়। কোম্পানি থেকে জানিয়েছে আগামীতে আরও বাড়তে যাচ্ছে দাম।

যাত্রাবাড়ী বাজারের খুচরা মুদি দোকানদার সিরাজ আলী বলেন, রূপচাঁদার ৫ লিটারের বোতল এখন ৫৫০ টাকায় বিক্রি করছি। গতকালও কোম্পানি থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে দাম আরও বাড়ানো হয়েছে।

জানা গেছে, প্রতিবছর দেশে পরিশোধিত ভোজ্যতেলের চাহিদা রয়েছে ১৪ লাখ টন। এর ৯০ শতাংশই বিদেশ থেকে আমদানি করা হয়। মোট আমদানির প্রায় ৪০ শতাংশই সয়াবিন তেল।

এমন আরো সংবাদ

Back to top button