মধুদার ভাস্কর্য ভেঙে দিলো দুর্বৃত্তরা, রাতেই মেরামত

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ঢাবি) ‘মধুসূদন দে স্মৃতি ভাস্কর্যের কান গতকাল বুধবার রাতে ভেঙে ফেলেছিল দুর্বৃত্তরা। বিষয়টি জানতে পেরে ভাস্কর্যের ভেঙে ফেলা অংশটি পুনঃস্থাপন করা হয়েছে। দেশে চলমান ভাস্কর্যবিরোধী আন্দোলনের মধ্যেই এমন ঘটনা ঘটল।

ছাত্র আন্দোলনের সূতিকাগার হিসেবে পরিচিত এই স্মৃতি ভাস্কর্যটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনের ব্যবসায় প্রশাসন ইনস্টিটিউটের সামনে অবস্থিত। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল টিমের একজন সদস্য ও মধুর ক্যান্টিনের একজন কর্মচারী জানিয়েছেন, মধুদার ভাস্কর্য ভাঙার বিষয়টি আসার পর প্রক্টর এ কে এম গোলাম রব্বানীকে জানানো হয়।

পরে প্রক্টরিয়াল টিমের কয়েকজন সদস্য গিয়ে ভাস্কর্যে নতুন কান স্থাপন করেন। তবে প্রক্টর জানান, মধুর ক্যান্টিনের কর্মচারীরাই ভেঙে ফেলা এই নতুন কান প্রতিস্থাপন করেছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাবি প্রক্টর গোলাম রব্বানী জানান, ভাস্কর্য ভেঙে ফেলার বিষয়টির তথ্য আমার কাছে এসেছে। ভাস্কর্যটি কারা ভেঙেছে তা এখনো জানা যায়নি। তবে কী উদ্দেশ্যে কাজটি করেছে, সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের তা খুঁজে বের করতে বলা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

উল্লেখ্য, মধুসূদন দে, যিনি ‘মধুদা’ নামেই বহুল পরিচিত। তিনি ছিলেন মধুর ক্যান্টিনের প্রতিষ্ঠাতা। মধুদা সামাজিক ও রাজনৈতিক আন্দোলনে সোচ্চার ছিলেন। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চের কালরাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হল থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে তাকে হত্যা করে। মধুদার স্মৃতির স্মরণে তার নামেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থিত রেস্তোরাঁটির নামকরণ করা হয় মধুর ক্যান্টিন।

এমন আরো সংবাদ

Back to top button