ম্যারাডোনার মৃত্যুর পর শোকবিহ্বল পেলে

সর্বকালের সেরা ফুটবলার কে? ডিয়েগো ম্যারাডোনা নাকি কালো মাণিক পেলে। কারও কাছে ম্যারাডোনা আবার কারও কাছে পেলে। সেই বিতর্ক আপাতত থাক। হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করে চলে গেছেন আর্জেন্টিনার কিংবদন্তি ফুটবলার ডিয়েগো ম্যারাডোনা। তার মৃত্যুতে শোকবিহ্বল পেলে। শোক প্রকাশ করে জানিয়েছেন তার সঙ্গে এক সাথে খেলবেন আকাশে।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম ডেইলি মেইলের এক প্রতিবেদনে ম্যারাডোনার মৃত্যুর বিষয়টি জানানো হয়েছে। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬০ বছর। এর আগে বেশ কয়েক দিন অসুস্থ ছিলেন ফুটবলেন এই যাদুকর। তার মৃত্যুর পর টুইট করেন পেলে।

পেলে লেখেন, ‘খুব খারাপ একটা সংবাদ। আমি আমার সেরা বন্ধুকে হারিয়েছি এবং পৃথিবী হারিয়েছে একজন কিংবদন্তি। অনেক কিছুই বলার আছে, আপাতত তার পরিবারকে শোক বহন করার জন্য প্রভু যেন শক্তি দান করেন। আশা করি আমি তার সঙ্গে একসাথে আকাশে খেলব।’

গত মাসে ম্যারাডোনার মস্তিস্কে অস্ত্রোপচার করা হয়। তখন তার আইনজীবী জানিয়েছিলেন, মদে আসক্তির চিকিৎসা করাতে হবে তার। এরপর চিকিৎসা চললেও সবাইকে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে পাড়ি জমালেন তিনি। মৃত্যুর আগে তিনি আর্জেন্টিনার ক্লাব জিমনাসিয়ার কোচ ছিলেন।

আন্তর্জাতিক পর্যায়ে আর্জেন্টিনার হয়ে তিনি ৯১ খেলায় ৩৪ গোল করেন। তিনি চারটি ফিফা বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করেন। যার মধ্যে ছিল ১৯৮৬ বিশ্বকাপ, যেখানে তিনি আর্জেন্টিনার অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করেছেন এবং দলকে বিশ্বকাপ জয়ে নেতৃত্ব দেন। প্রতিযোগিতার সেরা খেলোয়াড় হিসেবে স্বর্ণপদক জেতেন।

পেশাদার ক্যারিয়ারে ম্যারাডোনা আর্জেন্টিনা জুনিয়র্স, বোকা জুনিয়র্স, বার্সেলোনা, নাপোলি, সেভিয়া এবং নিওয়েলস ওল্ড বয়েজের হয়ে খেলেছেন। ম্যানেজার হিসেবে খুব কম অভিজ্ঞতাসম্পন্ন হওয়া সত্ত্বেও ২০০৮ সালের নভেম্বরে আর্জেন্টিনা জাতীয় দলের কোচের দায়িত্ব দেওয়া হয় ম্যারাডোনাকে। ২০১০ বিশ্বকাপের পর চুক্তি শেষ হওয়ার আগ পর্যন্ত তিনি আঠারো মাস এই দায়িত্বে ছিলেন।

১৯৮৬ বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনাকে প্রায় একাই শিরোপা জেতানো ছাড়াও ইতালিয়ান ক্লাব নাপোলির হয়ে স্মরণীয় মৌসুম উপহার দিয়েছেন ম্যারাডোনা। নাপোলিকে দুবার সিরি ‘আ’ ও উয়েফা কাপ জিতিয়েছেন ম্যারাডোনা।

এমন আরো সংবাদ

Check Also
Close
Back to top button