ইলিশ সংরক্ষণ অভিযানে পোড়ানো হলো কারেন্ট জাল, ৪ জেলের জরিমানা

মা ইলিশ সংরক্ষণে কুড়িগ্রামের সদর ও উলিপুর উপজেলার মোগলবাসা, বেগমগঞ্জ ও যাত্রাপুর ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় ব্রহ্মপুত্র নদে ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালিয়ে ৮ হাজার মিটার কারেন্ট জাল আটক করার পর পুড়ে ফেলা হয়েছে। এ ছাড়া ৪ জন জেলেকে ১ হাজার ৭০০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। পাশাপাশি, অভিযানে উদ্ধারকৃত ১৫ কেজি ইলিশ মাছ জেলা সদরের সরকারি শিশু পরিবারে অবস্থানরত শিশুদের খাওয়ানোর জন্য বিনামূল্যে দেওয়া হয়েছে।

রোববার ( ১ নভেম্বর) বিকেল থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত এই অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযানে ৮ হাজার মিটার জাল আটকসহ নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ইলিশ মাছ শিকারের অপরাধে যাত্রাপুর ইউনিয়নের চর পার্বতীপুর গ্রামের রবি চাঁদকে ২০০ টাকা এবং একই গ্রামের আনোয়ার হোসেন, বেগমগঞ্জ ইউনিয়নের মোল্লাপাড়া গ্রামের কাওছার আলী ও ইসলামপুর গ্রামের নুর ইসলাম-এই ৩ জনের প্রত্যেককে ৫০০ টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে। এ ছাড়া আটক জালগুলো প্রকাশ্যে পুড়ে ফেলা হয়।

ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. মাহমুদুল হাসান। এ সময় অন্যদের মধ্যে সদর উপজেলার সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা ইসমত আরাসহ সদর ও উলিপুর উপজেলা মৎস্য কমিটির সদস্য এবং পুলিশ সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

জেলা মৎস্য কর্মকর্তা কালিপদ রায় জানান, ইলিশ মাছের প্রধান প্রজনন মৌসুম হওয়ায় ১৪ অক্টোবর থেকে ৪ নভেম্বর পর্যন্ত নদীতে ইলিশ মাছ আহরণ বন্ধ রাখা হয়েছে। তাই মা ইলিশ সংরক্ষণে অভিযান পরিচালনা পরিচালনা করা হচ্ছে।

তিনি আরও জানান, ইলিশ মাছ ধরা বন্ধ রাখার জন্য জেলেদের প্রণোদনা দেওয়া হয়েছে। জেলার ব্রহ্মপুত্র নদের পাড়ের সদর, উলিপুর, চিলমারী, রৌমারী ও রাজিবপুর-এই ৫ উপজেলার ২টি পৌরসভা এবং ৩৬টি ইউনিয়নের ৭ হাজার ৫০০ জেলে পরিবারের প্রত্যেককে ২০ কেজি করে চাল বিনামূল্যে দেওয়া হয়েছে।

এমন আরো সংবাদ

Back to top button