বিয়ের প্রলোভনে এক বছর ধরে কিশোরীকে ধর্ষণ, যুবক আটক

পাবনার ভাঙ্গুড়া উপজেলায় বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে এক কিশোরীকে (১৫) ধর্ষণের অভিযোগে মিলন হোসেন (২২) নামে এক যুবককে আটক করা হয়েছে। আজ সোমবার সকাল ১০টার দিকে উপজেলার পৌর সদরের দক্ষিণ মেন্দা আর্দশ গ্রাম থেকে তাকে আটক করা হয়। ওই কিশোরীর বাবা বাদী হয়ে ভাঙ্গুড়া থানায় অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশ মিলনকে আটক করে।

থানায় অভিযোগ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, অভিযুক্ত মিলন হোসেন উপজেলার পৌর সদরের ২ নম্বর ওয়ার্ডের দক্ষিণ মেন্দা আদর্শ গ্রামের বাসিন্দা সাকোওয়াত হোসেন এর ছেলে। ঘটনার দিন প্রতিবেশী ওই কিশোরীকে বাড়িতে একা মিলন হোসেন তার ঘরে ঢুকে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। ওই কিশোরীর চিৎকার ও ধাস্তাধাস্তির এক পর্যায়ে পাশের বাড়ি থেকে তার ভাবি বাড়িতে এসে দুজনকে একই ঘরে আপত্তিকর অবস্থায় দেখতে পেয়ে ঘরের মধ্যে দুজনকে আটকে রাখে।

তাদের দুজনকে আটকের খবর ছড়িয়ে পড়লে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। আহত অবস্থায় কিশোরী ভুক্তভোগীকে উদ্ধার করে ঘটনার দিন বিকেলে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। পরে এলাকার কতিপয় প্রভাবশালীর মধ্যস্থতায় দীর্ঘসময় ধরে আপোস মীমাংসের চেষ্টা চলে। আপোস মীমাংসের চেষ্টা ব্যর্থ হয়ে ভাঙ্গুড়া থানায় ভুক্তভোগীর বাভা বাদী হয়ে মিলন হোসেনকে অভিযুক্ত করে ধর্ষণের অভিযোগ দায়ের করেন।

এবিষয়ে ভুক্তভোগীর দাবি, মিলন হোসেন তাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে এক বছর ধরে শারীরিক সম্পর্ক করে আসছে। এখন বিয়ে না করলে সে আত্মহত্যা করবে বলে হুমকি দিয়েছে।

অন্যদিকে অভিযুক্ত মিলন হোসেনের বাবা সাকোওয়াত হোসেন বলেন, আমার ছেলে ষড়যন্ত্রের শিকার।

অভিযোগের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন ভাঙ্গুড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহম্মদ আনোয়ার হোসেন। তিনি বলেন, ‘মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে এবং তদন্ত করে আইনের তাকে আওতায় আনা হবে।’

এমন আরো সংবাদ

Back to top button