১৭৬ বছরের পরিসংখ্যান বিশ্লেষণ করে সুরক্ষিত করা হয়েছে ভাসানচরকে

১৭৬ বছরের ঘূর্ণিঝড়ের পরিসংখ্যান বিশ্লেষণ করে জলোচ্ছ্বাস ও ভাঙন ঠেকাতে সক্ষম বাঁধ দিয়ে রোহিঙ্গাদের জন্য সুরক্ষিত করা হয়েছে ভাসানচরকে। এ ছাড়া প্রতি হাজার মানুষের জন্য ২৬০ কিলোমিটার বেগে ধেয়ে আসা ঝড়েও টিকে থাকতে সক্ষম আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণ করে নিশ্চিত করা হয়েছে দুর্যোগকালীন নিরাপত্তা। এ বাস্তবতায় কক্সবাজার রোহিঙ্গা ক্যাম্প তো বটেই, এমনকি দেশের যে কোনও দ্বীপের চেয়ে ভাসানচরকে বেশি সুরক্ষিত মনে করছেন ভাসানচর তৃতীয় আশ্রয়ণ প্রকল্পের সংশ্লিষ্টরা।

দুই দশকেরও কম সময় আগে বঙ্গোপসাগরের বুকে জেগে ওঠা ভাসানচরকে জোয়ার, ঘূর্ণিঝড় ও ভাঙন থেকে সুরক্ষা দিতে প্রথমত, দ্বীপের দক্ষিণ পশ্চিম তীরে ২ কিলোমিটারের বেশি বাঁধের ৪০০ থেকে ৫০০ মিটার আগে পাইলিং করে, পাথর ও জিও ব্যাগ ফেলে তিন স্তরের তীর প্রতিরক্ষাব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। দ্বিতীয়ত, প্রাথমিকভাবে ৯ ফুট উচ্চতার ১২ দশমিক ১ কিলোমিটার বাঁধ নির্মাণ করা হয়েছে। জানুয়ারি থেকে চলছে ১৯ ফুট পর্যন্ত উচ্চতা বাড়ানোর কাজ। বাঁধের চারদিকে ১৮টি স্লুইস গেট বসিয়ে গড়ে তোলা হয়েছে শক্তিশালী ড্রেনেজ ব্যবস্থা। বাঁধ থেকে সমুদ্রতীরবর্তী এলাকায় নেয়া হয়েছে বনায়নের উদ্যোগ।

দুর্যোগের কথা মাথায় রেখে গুচ্ছগ্রামের এক হাজার ৪৪০টি বাড়ি নির্মাণ করা হয়েছে ৪ ফুট উচ্চতায়। এ ছাড়া আছে ঘণ্টায় ২৬০ কিলোমিটা বেগে ধেয়ে আসা ঘূর্ণিঝড় সইতে সক্ষম ১২০টি আশ্রয় কেন্দ্র। মাটি থেকে ১৪ ফুট উচ্চতার প্রতিটি আশ্রয়কেন্দ্র এক হাজার মানুষ এবং ২০০ পশুকে আশ্রয় দেবে।
১৮৪২ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত ১৭৬ বছরের ২০ হাজার সাইক্লোনের পরিসংখ্যান বিশ্লেষণ করে যুক্তরাজ্যভিত্তিক দুই সংস্থা এইচআর ওয়ালিংফোর্ড ও এমডিএম যে পরামর্শ দিয়েছে, সে অনুযায়ী এসব পদক্ষেপ নেয়ার কথা জানিয়েছে প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা।
জরুরি উদ্ধার ও ত্রাণকাজের জন্য রয়েছে আন্তর্জাতিক মানের ২টি হেলিপ্যাড। প্রকল্পের ৮টি হাইস্পিডবোট ও লোকাল হাইস্পিড বোটের মাধ্যমে ভাসানচর থেকে ১-২ ঘণ্টার মধ্যে চট্টগ্রাম অথবা নোয়াখালীর চেয়ারম্যান ঘাটে পৌঁছা যায়। রয়েছে প্রকল্পের ৪টি এলসিইউ এবং বিআইডব্লিউটিসির বারো আউরিয়ার মাধ্যমে ৩-৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রাম পৌঁছার ব্যবস্থা।
সব মিলিয়ে যোগাযোগ আর সুরক্ষার এত আয়োজন দেশের আর কোনও দ্বীপে নেই বলেই দাবি ভাসানচর তৃতীয় আশ্রয়ণ প্রকল্প কর্তৃপক্ষের।

এমন আরো সংবাদ

Back to top button