কার্তিক কলকাতার অধিনায়কত্ব ছাড়তেই গম্ভীরের টুইট ঘিরে শোরগোল

দলে ইয়ন মর্গ্যানের মত আন্তর্জাতিক স্তরের অভিজ্ঞতা সম্পন্ন অধিনায়ক থাকতে দীনেশ কার্তিকের হাতে কেন নাইটদের অধিনায়কত্বের দায়িত্ব? এমনই প্রশ্নবাণে টুর্নামেন্টের শুরু থেকে বিদ্ধ হতে হচ্ছিল কলকাতা নাইট রাইডার্স ফ্র্যাঞ্চাইজিকে।

তার উপর প্রথমদিকে কার্তিকের ব্যাটে রান না থাকায় মর্গ্যানের হাতে দায়িত্ব দেওয়ার দাবি আরও জোরালো হয়ে ওঠে। কিন্তু চেন্নাই এবং পাঞ্জাবের বিরুদ্ধে দলের দুরন্ত জয় এবং সর্বোপরি পাঞ্জাব ম্যাচে কার্তিকের ২৯ বলে ৫৮ রানের ঝড়ো ইনিংসে সেই দাবি অনেকটাই থামিয়ে যায়।

কিন্তু গতকাল শুক্রবার (১৬ অক্টোবর) মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের বিরুদ্ধে খেলতে নামার আগে অধিনায়কের পদ থেকে হঠাতই সরে দাঁড়ালেন দীনেশ কার্তিক। নেতৃত্ব তুলে দিলেন সতীর্থ মর্গ্যানের হাতেই। কার্তিক চাইছেন ব্যাটিংয়ে আরও মনোনিবেশ করতে।
কিন্তু নাইট শিবির থেকে স্বেচ্ছায় কার্তিকের সরে দাঁড়ানোর বিষয়টি বলা হলেও প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে। অনেকের মতে অধিনায়কের পদ থেকে ছেঁটেই ফেলা হয়েছে কার্তিককে। এমতাবস্থায় জল্পনা কয়েকগুণ উস্কে দিয়ে টুইট করলেন কলকাতা নাইট রাইডার্সের সাবেক অধিনায়ক গৌতম গম্ভীর।

তিনি টুইটে লিখলেন, ‘দলের একটা ঘরানা তৈরি করতে বহু বছর সময় লেগে যায়। কিন্তু তা ভেঙে যায় মুহূর্তের মধ্যে।’ গম্ভীর তাহলে তাঁর টুইটে পরোক্ষভাবে কাকে খোঁচা দিলেন। দেশীয় অধিনায়কের হাত থেকে দায়িত্ব কেড়ে একজন বিদেশি ক্রিকেটারের হাতে দায়িত্ব সঁপে দেওয়ার বিষয়টিতে গম্ভীরের নিশানায় যে টিম ম্যানেজমেন্ট, সেটা বোঝার জন্য খুব বড় ক্রিকেট বিশেষজ্ঞ হওয়ার প্রয়োজন পড়ে না।

স্বাভাবিকভাবেই কার্তিক দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি নেওয়ার পর আইপিএলের ২০১২ এবং ২০১৪ খেতাবজয়ী অধিনায়ক গৌতম গম্ভীরের টুইটে শোরগোল ইন্টারনেটে। গতকাল শুক্রবার সকালে নাইট ফ্র্যাঞ্চাইজির পক্ষ থেকে এক বিবৃতির মাধ্যমে নেতৃত্বের হাতবদল সম্পর্কে অবগত করা হয়েছে। যেখানে বলা হয়েছে ব্যাটিংয়ে ফোকাস করতেই এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছেন কার্তিক।

নাইট ফ্র্যাঞ্চাইজি তরফে সিইও ভেঙ্কি মাইসোর জানিয়েছেন, আমরা ডিকে’র মত একজন অধিনায়ক পেয়ে গর্বিত, যিনি দলকে সবসময় সর্বাগ্রে নেতৃত্ব দিয়েছেন। বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া যে কোনও ক্রিকেটারের জন্য সাহসিকতার পরিচায়ক। আমরা অবাক হলেও তার সিদ্ধান্তকে সমর্থন করছি।

Back to top button