সার্জিক্যাল মাস্কেও করোনা টিকতে পারে ৭ দিন!

hur musks
Palestinian newlywed Baraa and Ammar pose for a picture while wearing face masks in the West Bank village of Dora near Hebron on April 4, 2020, as authorities imposed restrictions on large gatherings in a bid to stem the spread of the COVID-19 coronavirus. (Photo by HAZEM BADER / AFP)

তাহলে কী সার্জিক্যাল মাস্ক পরেও করোনাভাইরাস থেকে রেহাই নেই! হ্যাঁ, তেমন কিছুরই ইঙ্গিত দিচ্ছে নতুন এক গবেষণা। তাতে গবেষকেরা জানিয়েছেন, সার্জিক্যাল মাস্কেও করোনাভাইরাস টিকে থাকতে পারে ৭ দিন! কার্ডবোর্ড, স্টেইনলেস স্টিলসহ বিভিন্ন জিনিসপত্রের ওপর করোনাভাইরাস কতক্ষণ টিকে থাকতে পারে তা জানার জন্য শুরু থেকেই পর্যবেক্ষণ চালিয়ে আসছেন গবেষকেরা। এ নিয়ে হংকং স্কুল অব পাবলিক হেলথের নতুন একটি গবেষণা প্রকাশ করেছে মেডিকেল বিষয়ক জার্নাল ল্যানসেট। এতে দেখানো হয়েছে টিস্যু, কাঠ ও কাপড়সহ বিভিন্ন জিনিসপত্রের পৃষ্ঠদেশে করোনাভাইরাস কতক্ষণ স্থায়ী হতে পারে। বিস্ময়কর ব্যাপার যে, ফেইস মাস্কের বাইরের দিকে এক সপ্তাহ পরেও করোনাভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া গেছে!

প্রতিবেদনে গবেষকেরা লিখেছেন, “অবাক করা ব্যাপার যে, সপ্তম দিনেও সার্জিক্যাল মাস্কের বাইরের দিকে এই ভাইরাসের শনাক্তযোগ্য মাত্রার উপস্থিতি থাকতে পারে।”

অথচ করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের শুরু থেকেই ফেইস মাস্ক বিশেষ করে সার্জিক্যাল মাস্ক ও এন৯৫ রেসপিরেটরি মাস্কের চাহিদা বেড়েছে বিশ্বজুড়ে। যদিও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা- ডব্লিউএইচও বলেছে, করোনাভাইরাসে নিজে আক্রান্ত না হলে বা আক্রান্ত কারোর সেবায় নিয়োজিত না থাকলে মাস্ক পরার কোনো দরকার নেই।

মাস্ক থেকে করোনায় আক্রান্ত হওয়া এড়ানোর জন্য সঠিকভাবে এটা পরা ও খোলার ওপর গুরুত্ব দিয়েছেন ওই গবেষণার জড়িত লিও পুন লিট-ম্যান ও মালিক পেইরিসসহ সব গবেষক।

সাউথ চায়না মর্নিং পোস্টকে পেইরিস বলেছেন, “এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ যে, আপনি যখন সার্জিক্যাল মাস্ক পরবেন তখন বাইরের দিকে স্পর্শ করা যাবে না। কারণ আপনার হাতজোড়া জীবাণু আক্রান্ত হতে পারে। সেক্ষেত্রে আপনি যদি আপনার চোখ স্পর্শ করেন তাহলে চোখের মাধ্যমে আপনি ভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারেন।”

মুখ ও নাক ঢাকার জন্য ব্যবহৃত কাপড় বারবার ধুয়ার জন্য পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। আর খোলার সময় ঠিক সামনের জায়গাটায় যেন স্পর্শ না লাগে। মাস্ক খোলার পর পরই ভালোভাবে হাত ধুয়ারও পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, করোনাভাইরাস তুলনামূলক কোমল পৃষ্ঠগুলোতে বেশিক্ষণ স্থায়ী হয়। কপারের পৃষ্ঠায় টিকতে পারে ৪ ঘণ্টা, কার্ডবোর্ডে থাকতে পারে ২৪ ঘণ্টা। আর প্লাস্টিকে টিকতে পারে তিন দিন।

এর আগে একটি গবেষণায় বলা হয়েছিল, কপারে করোনাভাইরাস টিকতে পারে ৪ ঘণ্টা, কার্ডবোর্ডে ২৪ ঘণ্টা, প্লাস্টিকে তিন দিন। তবে করোনাভাইরাসের আয়ু তাপমাত্রা ও আর্দ্রতাসহ অন্যান্য বিষয়ও প্রভাবিত করে বলে জানিয়েছেন গবেষকেরা।

এমন আরো সংবাদ

Back to top button