আবার রিমান্ডে নিলে মনে হয় না আর বাঁচব, বিচারককে নাসির

চিত্রনায়িকা পরীমনিকে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার মামলায় আজ বুধবার নাসির উদ্দিন মাহমুদ ও তুহিন সিদ্দিকী অমির পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। রিমান্ড শুনানির আগে আসামিদের আদালতে হাজির করা হয়। দুপক্ষের শুনানি শেষ হলে কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে থাকা নাসির উদ্দিন বিচারককে রিমান্ড আদেশ না দেওয়ার অনুরোধ করেন। তিনি বলেন, ‘এখন আবার আমাকে রিমান্ডে পাঠানো হলে মনে হয় না আর বাঁচব।’

ঢাকা জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম রাজিব হাসান ওই দুই আসামির রিমান্ডের আদেশ দেন। আদেশের আগে বিচারকের উদ্দেশে নাসির উদ্দিন বলেন, ‘আমার বয়স ৬৫। এজমাসহ বিভিন্ন রোগে ভুগছি। গত ৯ দিন ডিবির রিমান্ডে ছিলাম। এখন আবার আমাকে রিমান্ডে পাঠানো হলে মনে হয় না আর বাঁচবো।’

রিমান্ডে না নিয়ে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদ করার অনুরোধ জানিয়ে নাসির উদ্দিন বলেন, ‘ছাত্র থেকে রাজনীতি করে আসছি। আমি একজন সমাজসেবক। তা ছাড়া আমি উত্তরা ক্লাবের সভাপতি ছিলাম। সাভার বোট ক্লাবের সদস্য। বোট ক্লাব ভবন নির্মাণে আমিসহ কয়েকজন অবদান রেখেছি। এর আগে আমার বিরুদ্ধে আর কোনো অভিযোগ নাই। আমি কোনো ঝামেলায় ছিলাম না। দয়া করে রিমান্ড না দিয়ে আমাকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ দেন।’এরপর আদালত প্রত্যেকের পাঁচ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে বিমানবন্দর থানার মাদক মামলায় নাসির উদ্দিন এবং অমির সাত দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। ওই রিমান্ড শেষে তাদের বুধবার আদালতে হাজির করা হলে পরীমনির ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সাভার থানার পরিদর্শক মো. কামাল হোসেন তাদের ১০ দিন রিমান্ড আবেদন করেন।

এমন আরো সংবাদ

Check Also
Close
Back to top button