জেলেদের চাল আত্মসাতে বরখাস্ত হয়েও নৌকা প্রতীকে জয়

কাকচিড়া ইউনিয়ন পরিষদে টানা তৃতীয়বারের মতো চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে হ্যাট্রিক করলেন বরগুনার পাথরঘাটার আলাউদ্দিন পল্টু। নৌকা প্রতীক নিয়ে তিনি পেয়েছেন পাঁচ হাজার ৪০৯ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী শাজাহান পহলান ঘোড়া প্রতীকে পেয়েছেন পাঁচ হাজার ৩১৬ ভোট।

এর আগে দ্বিতীয় মেয়াদে চেয়ারম্যান থাকাকালীন জেলেদের চাল আত্মসাতের অভিযোগে ২০২০ সালের ১৫ এপ্রিল বরখাস্ত হন বরগুনার পাথরঘাটা উপজেলার কাকচিড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ আলাউদ্দিন পল্টু। এরপর ২১ এপ্রিল তাকে দলীয় পদ থেকেও অব্যাহতি দেয় পাথরঘাটা উপজেলা আওয়ামী লীগ। এরপর স্বপদে বহাল হতে উচ্চ আদালতে আপিল করলেও ওই বছরের ১০ ডিসেম্বর তা খারিজ হয়ে যায়। এরপর থেকেই চেয়ারম্যান পদ থেকে চুড়ান্ত বরখাস্ত ছিলেন তিনি।

গতকাল সোমবার পাথরঘাটার তিন ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে পাথরঘাটা উপজেলার কাকচিড়া ইউনিয়নে আলাউদ্দীন পল্টুসহ কাঠালতলীতে শহিদুল ইসলাম ও কালমেঘা ইউনিয়ন পরিষদে গোলাম নাসির নৌকা প্রতীক নিয়ে বিজয়ী হয়েছেন।

সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, আলাউদ্দীন পল্টু ৫৫০টি জেলে পরিবারের ২০২০ সালে ফেব্রুয়ারি ও মার্চ মাসের ভিজিএফের চাল বিতরণে অনিয়মের করেন। প্রতি উপকারভোগীকে ৮০ কেজি চালের পরিবর্তে ৩০ কেজি করে চাল দেওয়ার অভিযোগ উঠে তার বিরুদ্ধে। এভাবে তিনি ২৭ হাজার ৫০০ কেজি চাল আত্মসাৎ করেন। যার সত্যতাও পায় তদন্ত কমিটি।

এ ঘটনায় ওই বছরের ৪ এপ্রিল ইউপি চেয়ারম্যান পল্টুকে আটক করে পাথরঘাটা থানায় সোপর্দ করে নৌ-বাহিনী। এরপর ওইদিনই তার বিরুদ্ধে পাথরঘাটা থানায় মামলা দায়ের করেন সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের ট্যাগ অফিসার রঞ্জিত মিস্ত্রি। পরে আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। এরপর চাল আত্মসাতের অভিযোগে অভিযুক্ত হওয়ায় ওই বছরের ১৫ এপ্রিল পল্টুকে সাময়িক বরখাস্ত করে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়। এর ছয় দিনের মাথায় ২১ এপ্রিল ওই ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের সভাপতির পদ থেকেও তাকে অব্যাহতি দেয় উপজেলা আওয়ামী লীগ।

এরপর মন্ত্রণালয়ের এ আদেশ বাতিলের পাশাপাশি জামিন চেয়ে উচ্চ আদালতে আবেদন করেন আলাউদ্দিন পল্টু। পরে ওই বছরের ১০ জুন আদালত থেকে তিনি জামিন পান এবং ২২ জুলাই তার বরখাস্তাদেশ স্থগিত করেন উচ্চ আদালত। আদালতের এ আদেশের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষ আপিল করলে আলাউদ্দিন পল্টুর বরখাস্তাদেশ বহাল রাখেন হাইকোর্ট।

এ বিষয়ে হ্যাটট্রিক বিজয়ী আলাউদ্দিন পল্টু বলেন, যে অভিযোগে আমাকে বরখাস্ত করা হয়েছিল তা সঠিক নয়। আর সঠিক নয় বলেই আমার এলাকার ভোটাররা স্বতঃস্ফূর্তভাবে ভোট দিয়ে আমাকে টানা তৃতীয়বারের মতো বিজয়ী করেছেন।

তিনি আরও বলেন, আমি ষড়যন্ত্রের শিকার হয়েছিলাম। আমার চরিত্রে কালিমা লাগানোর চেষ্টা হয়েছিল। স্বতঃস্ফূর্তভাবে ভোট দিয়ে টানা তৃতীয়বার বিজয়ী করে যার জবাব দিয়েছেন আমার এলাকার জনগণ। এ জন্য আমি কাকচিড়া ইউনিয়নবাসীর প্রতি কৃতজ্ঞ। অতীতে আমি যেমন তাদের পাশে ছিলাম ভবিষ্যতেও আমি তাদের পাশে থাকব, এই প্রতিশ্রুতি আমি তাদেরকে দিচ্ছি।

 

এমন আরো সংবাদ

Back to top button