বাংলাদেশিদের টাকায় ভরা সুইস ব্যাংক

দেশের মোট বাণিজ্যের প্রায় ২০ শতাংশই বিভিন্নভাবে পাচার হচ্ছে

বাংলাদেশ থেকে অর্থপাচারের বিষয়টি এখন সবারই জানা। তবে বিতর্ক হয় কীভাবে এবং কারা বেশি অর্থ পাচার করেন এ নিয়ে। কেউ অর্থ পাচার করছেন আন্ডার-ইনভয়েসিং (দাম কম দেখিয়ে পণ্য রপ্তানি) এবং ওভার-ইনভয়েসিংয়ের (আমদানিতে দাম বেশি দেখিয়ে) নামে। কেউ পাচার করেন অবৈধভাবে হুন্ডির মাধ্যমে। দেশ থেকে অর্থপাচার নিয়ে সংসদের ভেতর ও বাইরে এখন ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা চলছে।

পাচারকারীদের তালিকা প্রকাশেরও দাবি উঠেছে সংসদে। এ অবস্থার মধ্যে গতকাল বৃহস্পতিবার সুইজারল্যান্ডের সুইস ন্যাশনাল ব্যাংকের প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে দেখা গেছে, দেশটির ব্যাংকগুলোয় বাংলাদেশিদের ৫ হাজার ২৯১ কোটি টাকা জমা রয়েছে, যার সিংহভাগই দেশ থেকে পাচার হয়েছে বলে অর্থনীতিবিদরা মনে করেন। তবে বাংলাদেশি কাদের অর্থ সুইস ব্যাংকে জমা রয়েছে, সেই তালিকা প্রতিবেদনে প্রকাশ করেনি সুইস ব্যাংক।

সুইস ন্যাশনাল ব্যাংকের প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, সুইজারল্যান্ডের বিভিন্ন ব্যাংকে বাংলাদেশিদের অর্থের পাহাড় জমেছে। ২০২০ সালের হিসাব অনুযায়ী সুইস ব্যাংকে জমা অর্থের পরিমাণ ৫৬ কোটি ২৯ লাখ ফ্র্যাংক, বাংলাদেশি মুদ্রায় যা ৫ হাজার ২৯১ কোটি টাকা। (প্রতি সুইস ফ্র্যাংক ৯৪ টাকা হিসাবে)। আগের বছরের চেয়ে এই আমানত ৩৭৭ কোটি টাকা কমেছে। অর্থাৎ ওই বছর ২০১৯ সালে ছিল ৫ হাজার ৬৬৮ কোটি টাকা। এ ক্ষেত্রে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে ভারতের পরই বাংলাদেশের অবস্থান।

অর্থনীতিবিদরা বলছেন, সুইস ব্যাংক মূলত তাদের প্রতিষ্ঠানের কাছে থাকা বিদেশিদের আমানতের তথ্য প্রকাশ করে। অবশ্য বাংলাদেশি আইনে কোনো নাগরিকের বিদেশি ব্যাংকে আমানত রাখার সুযোগ নেই। বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্র জানায়, এখন পর্যন্ত কাউকে বিদেশে অর্থ জমা রাখার বিশেষ অনুমোদনও দেওয়া হয়নি। এ ছাড়া কোনো প্রবাসীও সরকারকে জানাননি যে তিনি সুইস ব্যাংকে অর্থ জমা রেখেছেন। ফলে সুইস ব্যাংকে জমা পুরো অর্থই দেশ থেকে পাচার করা হয়েছে বলে সংশ্লিষ্টরা মনে করেন।

এ বিষয়ে বুধবার ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির সভাশেষে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, ‘দেশে একটি গ্রুপ আছে যারা লোভে পড়ে দেশ থেকে অর্থ পাচার করছে। আমরা তাদের চিহ্নিত করার চেষ্টা করছি। এজন্য বিদ্যমান আইনের কিছু ক্ষেত্রে সংশোধন করা হচ্ছে। কিছু নতুন আইনও করা হচ্ছে। এ উদ্যোগের ফলে পাচারকারীদের ধরা সহজ হবে এবং আইনের আওতায় এনে শাস্তি দেওয়া যাবে।’

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক অর্থ উপদেষ্টা ড. এবি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম আমাদের সময়কে বলেন, অবৈধভাবে উপার্জিত, আন্ডার-ইনভয়েসিং এবং ওভার-ইনভয়েসিংয়ের মাধ্যমে টাকা পাচার করা হয়। শুধু সুইস ব্যাংকই নয়, অন্য দেশেও অর্থপাচারের ঘটনা আছে। আমরা সবাই জানি, কানাডায় অর্থপাচারের মাধ্যমে বেগমপাড়া গড়ে তোলা হয়েছে। তিনি বলেন, সুইস ব্যাংকে বিভিন্ন ব্যবসায়ীর কিছু মুনাফার অর্থ আছে। এর বাইরে পাচারের টাকাও রয়েছে।

জানতে চাইলে গবেষণা প্রতিষ্ঠান পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মুনসুর আমাদের সময়কে বলেন, সামাজিক ও রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে মুদ্রা পাচার হয়। এ ছাড়া নিরাপত্তাহীনতা, বিনিয়োগ ঝুঁকির কারণেও অর্থ পাচার হয়। উন্নয়নশীল দেশ থেকে উন্নত রাষ্ট্রে অর্থ পাচার হয়ে থাকে। এগুলো সমাধান করলে টাকা পাচার বন্ধ হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর ও বাংলাদেশ আর্থিক গোয়েন্দা ইউনিটের (বিএফআইইউ) প্রধান আবু হেনা মোহাম্মদ রাজী হাসান জানান, এই টাকার পুরোটা পাচার নয়। এর মধ্যে সুইজারল্যান্ডে যারা কাজ করছে তাদের আমানত রয়েছে। তবে ব্যক্তিগতভাবে কিছুটা থাকতে পারে। সে ক্ষেত্রে নতুন তথ্য প্রকাশের পর পরই বিষয়টি খতিয়ে দেখতে আমার ডিপার্টমেন্টের লোকজনকে অ্যাসাইনমেন্ট দিয়েছি। তার তথ্য দিলে আমি বিস্তারিত জানাতে পারব। তিনি বলেন, বাংলাদেশ থেকে বৈধভাবে কাউকে অর্থ নেওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়নি।

 

এমন আরো সংবাদ

Back to top button