মৃত প্রেমিকের পা দিয়ে সিঁদুর দিলো নাবালিকার সিঁথিতে

মৃত প্রেমিকের সঙ্গে বিয়ে করার ঘটনা শোনা যায় না। তবে এবার ভারতের বর্ধমান শহরে মৃত প্রেমিকের সঙ্গে বিয়ে করার এক নজিরবিহীন ঘটনা ঘটেছে। জানা গেছে, জীবিত নয়, মৃত প্রেমিকের সঙ্গেই বিয়ে করেই বিধবা হয়েছেন এক কিশোরী। মৃত প্রেমিকের পা দিয়ে এলাকাবাসী কিশোরীর মাথায় সিঁদুর তোলানোর পরই মুছে দিয়েছে সেই সিঁদুর। জোর করে হাতে শাঁখা পড়ানোর পর মুহুর্তেই ভাঙ্গা হয় সেই শাঁখা।

গতকাল রোববার বর্বরোচিত এই বর্ধমান শহরের লক্ষ্মীপুর মাঠ এলাকায় ঘটনাটি ঘটেছে। খবরটি প্রকাশ্যে আসলে নড়েচড়ে বসে পুলিশ-প্রশাসনও। আজ সোমবার ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এই সময় থেকে এ খবর জানা গেছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মৃত প্রেমিকের নাম শেখ আফতাব (১৭)। তার সঙ্গে বর্ধমান শহরের কাঁটাপুকুরের বাসিন্দা ভিন ধর্মের এক কিশোরীর প্রেমের সম্পর্ক হয়। যদিও তাদের প্রেমের সম্পর্কের বয়স মাত্র ৬ মাস। এর মধ্যেই গত শনিবার বিয়ের প্রস্তাব নিয়ে কিশোরীর বাড়িতে যান আফতাবের পরিবারের লোকেরা। কিন্তু কিশোরীর মা এত তাড়াতাড়ি মেয়ের বিয়ে দিতে রাজি হননি। তার কথায়, ‘মেয়ের বয়স সবে ১৫ বছর। আরও দুবছর পর বিয়ে দিতে চেয়েছিলাম।’

কিন্তু সেই সময় দিতে চাননি প্রেমিক আফতাব। তাই মেয়ের বাড়ি থেকে বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যাত হওয়ার পরেই রাতে কিশোরীটির সঙ্গে তার ফোনে ঝগড়া হয়। নাবালিকাটি মায়ের কথা অমান্য করতে না পারায় এই তরুণ প্রেমিক আত্মহত্যা করারও হুমকি দেয়। শুধু মৌখিক হুমকি নয়, নিজের ঘরে গলায় দড়ি দিয়ে ঝোলার আগের মুহূর্তের ছবি তুলে প্রেমিকাকে হোয়াটসঅ্যাপ করে বলে অভিযোগ। কিন্তু বিষয়টিতে গুরুত্ব দেয়নি নাবালিকা প্রেমিকা। তারপর গতকাল সকালে আফতাবের ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার হতেই শোরগোল পড়ে যায় এলাকায়।

তার পরিবারের দাবি, কিশোরীর মা বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখান করার জন্যই তাদের ছেলের অকালে প্রাণ গেল। প্রেমিকের আত্মহত্যা করতে যাওয়ার কথা কিশোরীটি যদি সময়মতো আফতাবের পরিবারকে জানাতো তাহলেও তাকে বাঁচানো যেত বলে মনে করছেন এলাকাবাসী। তাই তরতাজা এই তরুণের মৃত্যুর জন্য ১৫ বছরের নাবালিকাকেই দায়ী করেছে আফতাবের পরিবারসহ এলাকাবাসী। এমনকি তারাই ওই নাবালিকার শাস্তিরও বিধান দেয় বলে জানা গেছে।

এদিকে প্রেমিকের অকালমৃত্যুর শাস্তি হিসেবে এলাকাবাসী মৃত ওই তরুণের পা দিয়ে জোর করে কিশোরীটিকে সিঁদুর পরায়। হাতে শাঁখা পরতে বাধ্য করে। তারপর ওই প্রেমিকের দেহের সামনেই এলাকাবাসী ওই কিশোরীর মাথার সিঁদুর মুছে, শাঁখা ভেঙে দেয়। এছাড়া এলাকার লোকজন ওই কিশোরী ও তার মাকে অকথ্য গালিগালাজ করে এবং মারধরও করে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। খবর পেয়ে পুলিশ এলাকায় গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। মৃতদেহটি ময়নাতদন্তে পাঠায়।

তারপর গতকাল রাতে কিশোরীর মা গোটা ঘটনাটি জানিয়ে বর্ধমান থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। নাবালিকার উপর বেনজির এই অত্যাচারের ঘটনায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে পকসো ধারায় মামলা রুজু করা হয়েছে বলে বর্ধমান থানার পুলিশ জানিয়েছে।

 

এমন আরো সংবাদ

Back to top button