মেধাস্বত্ব মুক্ত টিকায় পুতিনের সমর্থন

রাশিয়ার তৈরি করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন ‘স্পুটনিক-ভি’ দেশে প্রয়োগে ইতোমধ্যে অনুমোদন দিয়েছে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর। এ ক্ষেত্রে রাশিয়া যদি চুক্তি অনুযায়ী বাংলাদেশকে করোনার টিকা দিতে না পারে, তা হলে অর্থ ফেরত দেবে। সেই সঙ্গে কোনো জটিলতা হলে এর দায়ও নেবে মস্কো। এমন ২৯টি সুপারিশসহ একটি চুক্তির খসড়া চূড়ান্ত করেছে আইন মন্ত্রণালয়। এ বিষয়ে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক গতকাল বলেন, এ রকম একটি ফাইল এসেছিল। আমি তাতে স্বাক্ষর করে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়ে দিয়েছি।

ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে চুক্তি মাফিক টিকা না পাওয়ার অভিজ্ঞতাকে সামনে রেখে রাশিয়ার সঙ্গে করা খসড়া চুক্তির কিছু ধারা নিয়ে আপত্তি আছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের। এ বিষয়ে মতামত জানাতে খসড়াটি পাঠানো হয় আইন মন্ত্রণালয়ে। এর পর এতে ২৯টি মতামত দিয়েছে আইন মন্ত্রণালয়। এর মধ্যে চুক্তি অনুযায়ী টিকা সরবরাহে ব্যর্থ হলে পুরো অর্থ ফেরত দেওয়ার ধারাটি ফের পর্যালোচনার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। উৎপাদক প্রতিষ্ঠান যদি ভ্যাকসিন সরবরাহ করতে না পারে বা নির্ধারিত পরিমাণের কম টিকা পাঠায় অথবা রাশিয়ার সরকারের আইনি কোনো জটিলতা কিংবা কোম্পানিটি দেউলিয়া হয়, তা হলে চুক্তির বাস্তবায়ন যেন রাশিয়া সরকার নিজে করে সেই ধারা যোগ করারও পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

এ ছাড়া আইন মন্ত্রণালয়ের সুপারিশমালায় টিকার ব্যবহারে কোনো ব্যক্তি ক্ষতিগ্রস্ত হলে উৎপাদক কোম্পানির যে দায়মুক্তির কথা বলা হয়েছে, সেটি নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়েছে। উৎপাদক প্রতিষ্ঠানের অনুমতি ছাড়া চুক্তির কোনো তথ্য প্রকাশিত হলে ১০ লাখ ডলারের যে জরিমানা ধরা হয়েছে, সেটির যৌক্তিকতা নিয়েও দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে মন্ত্রণালয়। সরবরাহকারী ও ক্রেতার মাঝে এ চুক্তি হতে হবে ব্রিটেনের আইন অনুযায়ী। কোনো বিরোধ দেখা দিলে সিঙ্গাপুর ইন্টারন্যাশনাল আরবিট্রেশন সেন্টার রুলসের আলোকে নিষ্পত্তি করা হবে। সালিশের স্থান হবে সিঙ্গাপুর।- এমন বিধান করারও পরামর্শ দেওয়া হয়েছে আইন মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে।

এমন আরো সংবাদ

Check Also
Close
Back to top button