সজনীকে রজনীতে খুশি করতে চান?

সজনে ফুল যে বেগুন-সিম দিয়ে শাকের মতো করে বসন্তকালে খাওয়া ভালো, তা তো আমরা জানি। তার কারণ, এই সজনে ফুল হল বসন্তের প্রতিষেধক। ইউনানি চিকিত্‍‌সায় টনিকের অন্যতম উপাদানই হল সজনে। যকৃত্‍ ও প্লীহার সমস্যাতেও ডাক্তাররা সজনে ফুল খাওয়ার পরামর্শ দেন। এমনকী পেটে কৃমি হলেও, এই ফুল ভালো কাজ দেয়। পাশপাশি আপনার সেক্স লাইফকেও যে এই ফুল পূর্ণতা দিতে পারে, তা কি জানতেন?

ড্রামস্টিক বা সজনে ফুলের বিজ্ঞানসম্মত নাম হল Moringa Oleifera। বিভিন্ন গবেষণায় জানা গিয়েছে, প্রজননতন্ত্রের জন্য সজনে ফুল একদম পারফেক্ট টনিক। যাঁরা অলিগোস্পার্মিয়ায় ভুগছেন, অর্থাত্‍‌ যাঁদের বীর্যে শুক্রাণু কম রয়েছে বা যেসব পুরুষ ইরেক্টাইল ডিসফাংশন বা ধ্বজভঙ্গের মতো অসুখে হতাশ, নির্দ্বিধায় তাঁরা সজনে ফুল খান। উপকার পাবেনই। এমনকী বন্ধ্যাত্বের সমস্যাতেও ভালো ভেষজ দাওয়াই হল এই সজনে ফুল।

বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, সজনে ফুলের মধ্যে থাকা টেরিগোস্পার্মিন নামে বিশেষ এক যৌগের উপস্থিতিই এর কারণ। যার কাজ হল, বীর্যে স্পার্ম বা শুক্রাণুর সংখ্যা বৃদ্ধি করা। সেইসঙ্গে স্পার্মকে শক্তিশালী ও তত্‍‌পর করে তোলে।

আমেরিকান জার্নল অফ নিউরোসায়েন্স-এ সজনে ফুল নিয়ে গবেষণার বিশদ অনেক আগেই প্রকাশিত হয়েছে। সেখানে বলা হয়, কামশক্তি ও যৌনকর্মক্ষমতা বাড়াতে সজনে ফুলের জুড়ি মেলা ভার। যে কারণে সজনের ফুলকে ‘ভারতীয় ভায়াগ্রা’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে।

যা লাগবে: একমুঠো সজনে ফুল, এক গ্লাস দুধ, ছোট এলাচ ও পরিমাণ মতো চিনি।

কী করে টনিক বানাবেন: এক গ্লাস দুধ ভালো করে গরম করে, তার মধ্যে একমুঠো সজনে ফুল দিন। সেদ্ধ হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। উতলে যাতে না পড়ে, মাঝেমধ্যে নাড়তে থাকুন। কতগুলো এলাচের দানা গুঁড়ো করে দুধেল মিশিয়ে দিন। সেদ্ধ হয়ে গেলে চিনি মিশিয়ে আর একটু ফুটিয়ে নিন। এরপর দুধটি উষ্ণ অবস্থায় খেয়ে ফেলুন। এ ভাবে একটানা কিছুদিন খেয়ে যেতে হবে। আপনি চিনি না মিশেয়েও খেতে পারেন।

আরও কিছু জানার থাকলে সরাসরি কল  করুন: 01688-909995

চিকিৎসা-পরামর্শ ও ওষুধ নিতে পারেন

এমন আরো সংবাদ

Back to top button