ক্যানসারে আক্রান্ত মাকে বাঁচাতে ক্রিকেটে ফিরতে চান পেসার শাহাদাত

প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেটে ফিরতে চান পাঁচ বছরের জন্য নিষিদ্ধ বাংলাদেশের পেসার শাহাদাত হোসেন।

নিষেধাজ্ঞা তুলে নিতে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের কাছে আবেদন করেছেন তিনি। অসুস্থ মাকে বাঁচাতে ক্রিকেটে ফেরাটা তার জরুরি বলেও বোর্ডের কাছে জানান এ পেসার।

শনিবার ক্রিকবাজকে এ তথ্য নিশ্চিত করে পেসার শাহাদাত বলেন, ‘আমার শাস্তির মেয়াদ কমাতে দরখাস্ত লিখে সম্প্রতি বোর্ডের কাছে জমা দিয়েছি। বাকিটা এখন বোর্ডের বিষয়। আমি প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেটে শিগগিরই ফিরতে চাই। আমার অর্থের খুব প্রয়োজন। আমার মা মরণব্যাধি ক্যানসারে আক্রান্ত। তার ওষুধ কিনতে আমি হিমশিম খাচ্ছি। আমি ক্রিকেট ছাড়া আর কিছুই জানি না।’

সতীর্থ আরাফাত সানিকে পেটানোর ঘটনায় নিষিদ্ধ শাহাদাত আরও বলেন, ‘ওই ঘটনার জন্য আমি অনুতপ্ত। আমি বিসিবিকে আশ্বস্ত করতে চাই– আমাকে সুযোগ দিলে কখনও এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি করব না। আর যদি করে ফেলি তো, বিসিবিকে আর মুখ দেখাব না। ’

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালে জাতীয় লিগের ম্যাচে সতীর্থ খেলোয়াড় আরাফাত সানিকে মারধর করে পাঁচ বছরের জন্য নিষিদ্ধ হন ক্রিকেটার শাহাদাত। একই সঙ্গে তাকে তিন লাখ টাকা জরিমানাও করে বিসিবি।

শেষ রাউন্ডের ওই ম্যাচে খুলনার বিপক্ষে ঢাকা বিভাগের হয়ে খেলেছিলেন শাহাদাত। ম্যাচ চলাকালীন বলের ঔজ্জ্বল্য বাড়ানো নিয়ে কথা বলার সময় শাহাদাত ক্ষিপ্ত হন সতীর্থ অফস্পিনার আরাফাত সানির ওপর। সানিকে শারীরিকভাবে আঘাত করেন শাহাদাত।

উপস্থিত ম্যাচ রেফারি আখতার আহমেদ তৎক্ষণাৎ শাহাদাতকে দুদিনের জন্য বহিষ্কার করেন।

এর পরই এ পেসারকে সব ধরনের ক্রিকেট থেকে পাঁচ বছরের জন্য নিষিদ্ধ করে বিসিবি। তবে এই শাস্তির শেষ দুই বছর হচ্ছে স্থগিত নিষেধাজ্ঞা। অর্থাৎ আর অপরাধে না জড়ালে শাহাদাত তিন বছর পরেই ক্রিকেটে ফিরে আসার সুযোগ পাবেন।

আর সেই সুযোগটি নিতে চাইছেন এ পেসার।

এর আগেও ২০১৬ সালে নিষিদ্ধ হয়েছিলেন ক্রিকেটার শাহাদাত। গৃহকর্মী নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছিল তার বিরুদ্ধে। বিষয়টি সে সময় আদালতেও গড়িয়েছিল।

বাংলাদেশের হয়ে ৩৮টি টেস্ট, ৫১টি ওয়ানডে ও ৬টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছেন শাহাদাত। টেস্টে ৭২, ওয়ানডেতে ৪৭ ও টি-টোয়েন্টিতে ৬ উইকেট শিকার করেছেন তিনি। ২০১৫ সালের পর আর জাতীয় দলে দেখা যায়নি এই ক্রিকেটারকে।

 

এমন আরো সংবাদ

Back to top button