৭ কলেজের শিক্ষার্থীদের অবরোধে যান চলাচল বন্ধ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত সরকারি সাত কলেজের চলমান ও আসন্ন সকল পরীক্ষা স্থগিতাদেশ প্রত্যাহারের দাবিতে নীলক্ষেত মোড়ে অবস্থান করছে শিক্ষার্থীরা। আজ বুধবার সকাল ৯টার পর থেকেই নীলক্ষেত মোড়ে অবস্থান নেন তারা। যে কারণে, নিউমার্কেট-আজিমপুর সড়কের দুপাশে যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে।

সাত কলেজের শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের নেতৃত্ব দিচ্ছেন ইডেন মহিলা কলেজের ছাত্রী মাহমুদা সুলতানা। তার তত্ত্বাবধানে হল ও ক্যাম্পাস খুলে দেওয়া এবং চলমান পরীক্ষা রুটিন অনুযায়ী নেওয়ার দাবিতে শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ করছেন। শিক্ষার্থীদের অবস্থানের কারণে নীলক্ষেত মোড় এলাকায় কোনো যানবাহন ঢুকছে না।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সেখানে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। জানা গেছে, নিউমার্কেট-আজিমপুর গমনকারী যানবাহন সায়েন্স ল্যাব হয়ে মিরপুর ও ধানমন্ডির দিকে চলে গেছে।

চলমান আন্দোলনের নেত্রী ও ইডেন মহিলা কলেজের ছাত্রী মাহমুদা সুলতানা বলেন, ‘গতকালের ঘোষণা অনুযায়ী আমরা আজ এখানে জড়ো হয়েছি। আমাদের আন্দোলন চলবেই।’

এ বিষয়ে ঢাকা কলেজ শিক্ষার্থী জুবায়ের রনি বলেন, ‘সেশনজটের কারণে ৬ বছর চলে গেছে। এখন অধিভুক্ত কলেজে ২০১৯ সালের অনার্স চতুর্থ বর্ষ ও ২০১৯ সালের অনার্স তৃতীয় বর্ষ এবং ২০১৭ সালের মাস্টার্স শেষ পর্বের মৌখিক পরীক্ষা চলছে। এই মুহূর্তে পরীক্ষা স্থগিতের যেই আদেশ দিয়েছে তাতে করে আমাদের আরও বাড়তি সময় নষ্ট হবে। এটা কোনোভাবেই কাম্য নয়। তাই এটা আমারা মেনে নিবো না।’

এর আগে, গতকাল মঙ্গলবার সেখানে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করেন শিক্ষার্থীরা। পরীক্ষা স্থগিতের সিদ্ধান্ত জানার পরই তারা নীলক্ষেত অবরোধ করেন। ফলে সন্ধ্যার পর নিউমার্কেট থেকে আজিমপুরগামী সড়কের যানবাহন চলাচল বন্ধ ছিল। রাত ১০টা ১০ মিনিটে শিক্ষার্থীরা রাস্তা ছেড়ে দিলে এই সড়কে যান চলাচল শুরু হয়।

উল্লেখ্য, গতকাল মঙ্গলবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভিসি (শিক্ষা) ও সরকারি সাত কলেজের প্রধান সমন্বয়কারী অধ্যাপক এ এস এম মাকসুদ কামালের সভাপতিত্বে সাত কলেজের অধ্যক্ষদের সভায় সাত কলেজের চলমান পরীক্ষাসহ সব চূড়ান্ত পরীক্ষা আগামী ১৭ মে পর্যন্ত স্থগিত করা হয়। সভায় সংশ্লিষ্ট অনুষদের ডিন, সাত কলেজের অধ্যক্ষ ও পরীক্ষা সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত হয় ঢাকা কলেজ, ইডেন মহিলা কলেজ, সরকারি শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজ, কবি নজরুল সরকারি কলেজ, বেগম বদরুন্নেসা সরকারি মহিলা কলেজ, মিরপুর সরকারি বাঙলা কলেজ ও সরকারি তিতুমীর কলেজ। এই কলেজগুলোয় মোট শিক্ষার্থী প্রায় দুই লাখ।

 

এমন আরো সংবাদ

Back to top button