দিনটি ‘ভালোবাসা’ নিবেদনের

ভালোবাসি হয়নি বলা তবুও ভালোবাসি তোমায়। আপনি যাকে ভালোবাসেন তাকে আপনি বলতে পারছেন না কতটা ভালোবাসেন। কিন্তু তার সঙ্গে কাটানো প্রতিটি সময় আপনার হৃদয় আনন্দিত থাকে। তবে আপনার সেই মানুষটিকেও তো আপনার মনের কথা জানানো উচিত। হয়তো সেও আপনাকে ভালোবাসে কিন্তু আপনাকেও সেটা প্রকাশ করতে পারছে না।

ফেব্রুয়ারি মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহের শুরুর প্রথম দিন অর্থাৎ আজ সোমবার (৮ ফেব্রুয়ারি) ‘বিশ্ব প্রপোজ ডে’। প্রতি বছর এই দিনে বিশ্বজুড়ে এই প্রপোজ ডে পালিত হয়ে আসছে। এই দিনটার জন্য হয়তো অনেকে অপেক্ষা করছেন যে তার ভালোবাসার মানুষকে মনের কথাটা বলে দেবেন। আর এখান থেকেই হয়তো শুরু হতে পারে আপনার নতুন জীবনের শুরু। তাকে নিয়ে চলা শুরু হতে পারে আপনার বাকিটুকু পথ।

ভালোবাসি কথাটা অনেকেই মুখে বলতে পারেন না। আবার অনেক ক্ষেত্রে আছে ভালোবাসি কথাটা মুখে বললে সেটাও ভালোলাগে না। এ কারণে আপনার প্রিয়জন আপনার থেকে হয়তো ভিন্ন কিছু আশা করতে পারে। আর আপনিও চাইবেন আপনার প্রিয়জনের কাছে বিশেষ গুরুত্ব পেতে। এই গুরুত্ব পেতে যদি আপনি প্রিয়জনকে একটু ভিন্ন ভাবে প্রেম নিবেদন করেন তাহলে সেটি হবে আরো আনন্দের।

কীভাবে ভিন্নভাবে আপনার প্রিয়জনকে প্রেম নিবেদন করবেন চলুন দেখে নেওয়া যাক-

স্মৃতিচারণের মাঝে প্রপোজ: আপনার এবং আপনার সঙ্গীর স্মৃতিগুলোর একটি সংগ্রহ তৈরি করুন। তা হতে পারে কোনো ছবি বা অন্য যে কোনো স্মৃতি। এরপর তা সুন্দরভাবে একটি বাক্সের ভেতরে রাখুন। প্রতিটি ছবির পেছনে একটি নোট লিখুন এবং সর্বশেষ নোট টিতে তাকে প্রপোজ করে ফেলুন।

প্রেমের কবিতা: আপনার ভালবাসার মানুষটি যদি সাহিত্যিপ্রেমী একজন হয়ে থাকে তবে এই কৌশল আপনার জন্য খুব কার্যকরী হবে। তাকে নিয়ে একটি কবিতা বা ছোট গল্প তৈরি করুন। আপনি যদি লেখক না হয়ে থাকেন চিন্তার কোন কারণ নেই। একটি পুরানো বইয়ের ভেতরে গর্ত করুন, একটি চিকুটে ভালবাসা বা বিয়ের প্রস্তাবটি লিখে ভেতরে রেখে দিন এবং তাকে বইটি থেকে একটি নির্দিষ্ট পৃষ্ঠা পড়তে বলুন। এতে সে প্রচণ্ড অবাক ও খুশি হয়ে ওঠবে।

ভালোবাসার গান গেয়ে প্রপোজ: ভালোবাসা প্রকাশের অন্যতম সেরা উপায় একটি প্রেমের গান গাওয়ার মাধ্যমে। বিশেষ করে যদি আপনি নিজে লিখেছেন এমন একটি গান গেয়ে তাকে প্রপোজ করেন, সে খুশিতে আত্মহারা হয়ে যাবে। আপনার গলা যতই বেসুরা হক না কেন, ৪টি লাইন তার জন্য গেয়ে ওঠলে সে প্রচণ্ড স্পেশাল বোধ করবে।

একটি অনলাইন প্রপোজ: আপনারা যদি এমন এক দম্পতি হয়ে থাকেন যারা প্রযুক্তি পছন্দ করে কিংবা দুজনে আলাদা আলাদা শহর বা দেশে বসবাস করছেন তবে এই পদ্ধতিতে প্রপোজ করতে পারেন। তাকে প্রস্তাব দেওয়ার জন্য একটি ইন্টারেক্টিভ ওয়েবসাইট তৈরি করুন এবং ওয়েবসাইটটির মাধ্যমে ভালোবাসার বা বিয়ের প্রস্তাবটি দিয়ে ফেলুন।

ধাঁধা সমাধানের মাঝে: আপনার প্রস্তাবটি কাস্টমাইজড একটি জিগস্যো (Jigsaw) ধাঁধাতে রাখুন। পুরো ধাঁধা শেষ করতে করতে আপনার প্রিয় মানুষটি বুঝে ফেলবে আপনার মনের কথা।

প্রেম নিবেদনের আগে যে বিষয়গুলো খেয়াল রাখা জরুরি, তা নিয়ে এই আয়োজন-

ব্যক্তিত্ব বজায়: নিজের ব্যক্তিত্বের বাইরে গিয়ে কিছু করতে যাবেন না। কোনো বন্ধু বা সেলিব্রিটির নকল না করে নিজের ব্যক্তিত্বসুলভ আচরণ করুন।

জায়গা নির্বাচন: প্রিয়জনকে নিয়ে যেতে পারেন আপনাদের প্রথম দেখা হওয়ার স্থানটিতে। একটা সংক্ষিপ্ত স্মৃতিচারণের পর প্রপোজ করে ফেলুন। তা না পারলে এমন কোনো সুন্দর জায়গা নির্বাচন করুণ, যেখানে কোলাহল কম।

ক্যান্ডেল লাইট ডিনার: এটিই সবচেয়ে ভালো উপায়। ক্যান্ডেল লাইট ডিনারে মোমবাতির আলো-আধারি পরিবেশ, সেই সঙ্গে কোনো রোমান্টিক মিউজিক…সবচেয়ে ভালো হয়ে ২-১ ঘণ্টার জন্য কোনো রেস্টুরেন্টের একটা কর্নার যদি রিজার্ভ করে ফেলতে পারেন। এই রোমান্টিক পরিবেশে আপনার প্রিয়জন রাজি না হয়ে পারবেনই না!

চিঠি: চিঠির আবেদন সব সময়েই অমলিন। নীল খামে পাঠিয়ে দিন সেই সঙ্গে সুগন্ধী আর ফুলের পাপড়ি যোগ করতে ভুলবেন না।

আংটি: একটা সুন্দর আংটি কিনতে ভুলে যাবেন না। একটা নতুন সম্পর্ককে বাঁধার অদ্ভুত সুন্দর প্রতীক এই আংটি। প্রিয়জনের চোখ বন্ধ করতে বলুন। তার হাতে পরিয়ে দিন আংটিটি। তারপর চোখ খুলতে বলুন। এবার তিন শব্দের কথাটি দেরি না করে বলে ফেলুন।

প্রপোজের ভাষা: প্রপোজের ভাষার ব্যাপারে সচেতন থাকুন। সরাসরি বলতে পারেন, “উইল ইউ ম্যারী মি?” অথবা “আমি তোমার হাতটা সারাজীবনের জন্যে ধরতে চাই”, “তুমি কী আমার জীবনসঙ্গিনী হবে?’, আপনার পছন্দমতো যে কোনো কিছুই হতে পারে। তবে খেয়াল রাখবেন, তা যেন মেয়েটির মন ছুঁয়ে যায়।

সময় নিন: প্রপোজ করার আগে সময় নিন। কথা বলুন, একসঙ্গে সময় কাটান ও সঙ্গিনীকে বুঝতে চেষ্টা করুন। যখন বুঝতে পারবেন আপনার প্রতি তার একটা সফট কর্নার তৈরি হয়েছে, তখনই প্রপোজ করুন। তার আগে নয়। আর দেরি কেন? মনের মানুষটিকে আজই বলে দিন ভালোবাসার কথাটি!

এমন আরো সংবাদ

Back to top button